1. admin@amardeshpbd.com : amardesh :
  2. sumarubelp@gmail.com : suma :
বাঞ্ছারামপুরে কাশফুলের ডগায় দুলছে শরৎ - আমার দেশ প্রতিদিন
December 3, 2022, 12:52 pm
ব্রেকিং নিউজ:
পাইকগাছা উপজেলা সাংস্কৃতিক জোটের সমন্বয়ক কমিটি ঘোষনা চুনারুঘাটের গ্রাম্য মোড়ল দ্বারা সমাজচ্যুত হামিদা বেগম ৫ জন কে আসামী করে থানায় অভিযোগ দায়ের রাজশাহীতে বিএনপির গণসমাবেশ; পথে পথে পুলিশের বাধা রাজস্থলী ও বাঙ্গালহালিয়াতে সেনাবাহিনীর উদ্যোগে পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২৫ বর্ষপূর্তি উদযাপন জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম দলের ২৪ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে জিয়া রহমানের মাজারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা কারামুক্ত হলেন আলোচিত আব্বাস আলী বিএমএসএস সিলেট বিভাগীয় সম্মেলন ৩রা ডিসেম্বর সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন দেশবাংলার রাজশাহী বিভাগীয় প্রধানকে হুমকি, ১০১ সাংবাদিকের বিবৃতি একাধিক এ প্লাস পাওয়ায় কাশিনাথপুর কামরুজ্জামান ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজের আনন্দ শোভাযাত্রা নেইমার বিশ্বকাপ খেলবে তিতে

বাঞ্ছারামপুরে কাশফুলের ডগায় দুলছে শরৎ

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, অক্টোবর ১, ২০২২,
  • 81 Time View

সফিকুল ইসলাম (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) বাঞ্ছারামপুর প্রতিনিধি।

চলছে শরৎকাল। আকাশে, কাশবনে, ফেসবুকে- সবখানেই এখন শরতের আবহ।

আকাশ নীল। পথের ধারে,ঢোল ভাঙা নদীর পশ্চিম পাশে ফুটেছে সাদা কাশফুল। শরতের স্পর্শ পেতে তাই কাশফুলের কাছে দলে দলে ছুটছে মানুষ।

আর ফেসবুক তো এখন সাদা আরও সাদা হয়ে গেছে কাশফুলে। সবার দেয়ালেই ঝুলছে কাশফুলের ছবি।
কয়েকদিন ধরেই সারাদেশে কাঠফাটা রোদ। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত চলছে এর তান্ডব। তাই বিকেলে একটু স্বস্তির পরশ পেতে নগরবাসীরা ভীড় করছেন পৌরসভার খুব কাছেই বেড়ে ওঠা কাশবনগুলোতে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার
পৌর শহরের কাছাকাছি মুলত দুই জায়গায় দেখা যায় বিশাল কাশফুলের সমারোহ।
উপজেলা সদরে বৃদ্ধাশ্রম সড়কের পশ্চিম পাশে ৭নং ওয়ার্ডের দূর্গারামপুর সাংবাদিক আশিকুর রহমানের বাড়ির ২শ গজ পশ্চিম পার্শে ওভার ব্রিজের কাছেই দেখা মিলে শরতের প্রতীক হয়ে উঠা কাশফুলের।

আর পৌরসভার ভিটি ঝগড়ারের পূর্ব এলাকার কাটাখালিতে গিয়ে দক্ষিণ পূর্ব দিকেই বালুর মাঠে দেখা মিলবে আরেকটি সুবিশাল সেই কাশবনের ও কফি হাউজে সমাহার ।

সম্প্রতি এই দুই জায়গায় গিয়ে দেখা যায়, বিকেলের শেষ রোদে মানুষজন ভীড় করছেন এসব কাশবনগুলোতে। কাশফুলের পাশে ছবি তোলায় মত্ত সকলে আছে ইউটিউব ও টিকটকার। করোনাকালীন দীর্ঘ বন্দী জীবন পেরিয়ে মুক্ত বাতাসে নিশ্বাস নিতে ছুটে বেড়াচ্ছেন সবাই।

দর্শনার্থীদের বেশীর ভাগই এসেছেন শাড়ি ও পাঞ্জাবি পরে। প্রত্যেকেই মোবাইলে ছবি তুলেছেন বিভিন্ন ভঙ্গিতে। অনেকেই আবার চলে এসেছেন পূজার মডেল শুট করতে ডিএসএলয়ার ক্যামেরা নিয়ে।

কাশফুল এলাকায় গিয়ে দেখা হয়ে হয় বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি সাংবাদিক আশিকুর রহমানের সহধর্মিণী রোকসানা রহমানের সাথে।

তিনি বলেন, ব্যক্তিগত কাজে ঘুরতে এসে দেখি চারদিকে লোকজন আর লোকজন । এসে মনে হল সারাদেশে কাঠফাটা গরম যখন ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে। তাই একটু শান্তি পেতে ছুটে এসেছি এই কাশবনে। তবে বিকেল ৩ টায় যাওয়ার পরেও ভয়ংকর গরম অনুভব করেছি। যদিও শরতের এই অপরূপ কাশবন আর সুন্দর আকাশ দেখে ক্লান্তি দূর হয়ে গেছে। অনেক ইয়াং লোকজনের ভিড় ছিল। কাশবনে ছবি তোলা এখন রীতিমতো ক্রেজে পরিণত হয়েছে।

আজ শনিবার জগন্নাথপুর এর পূর্ব পাশে দূর্গারামপুর এলাকার কাশফুল এলাকায় পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসেন, বাঞ্ছারামপুর সরকারি কলেজের প্রভাষক

তিনি জানান, খুব ভালো লেগেছে এখানে এসে। শেষ বিকেলের আলো আর কাশফুল সত্যি মন কেড়ে নিয়েছে।

তবে মানুষ কাশফুল নষ্ট করছে এই বিষয়টা খুব বেদনাদায়। আমাদের প্রত্যেকেই প্রকৃতির কাছাকাছি আসা যেমন দরকার তেমনি এর বৈচিত্র্য সৌন্দর্য রক্ষা করাও জরুরী।

একাধিক লোকজন বলেন, জায়গাটা খুবই সুন্দর, প্রকৃতি আকাশ মনে হয় একসাথে মিশে গেছে। পাশ দিয়েই ছুটে চলেছে ছুট্টো একটি খাল। যা কাশবনের সৌন্দর্য আরো বাড়িয়ে তুলেছে।

তারা বলেন, কিছু মানুষ কাশফুল ছিড়ে নিচ্ছে। অনেকে আবার পা দিয়ে মাড়িয়ে ভেঙে ফেলছে। অনেক জায়গায় দেখলাম আগুন দিয়ে ধরিয়ে জ্বালিয়ে দিয়েছে কাশফুল। প্রাকৃতিক জায়গাগুলো মানুষ এভাবে নষ্ট না করলে খুব ভালো হতো। আমাদের আরো সচেতন হওয়া জরুরী।

যেভাবে যাবেন:
বাঞ্ছারামপুর উপজেলার সদর এলাকায় যেতে হলে ঢাকা শহর থেকে যে কোন ধরনের যানবাহন করে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার মাতুর বাড়ির চত্বরে আসতে হবে। সেখান থেকে বৃদ্ধা শ্রম সড়কের দিকে সিএনজি অটোরিকশা বা লেগুনা দিয়ে আপনি দূর্গারামপুর যেতে পারেন। আবার রিকশা নিয়েও যাওয়া যায়। নামতে হবে মাওলাগঞ্জ বাজার এর থেকে একটু দূরে কাশফুল এলাকায়। এর অপর প্রান্তেই মহাশড়ক এর পরেই রয়েছে কাশফুলের সমরোহ।

আর দূর্গারামপুর কাশবনে যেতে প্রথমেই যে কোনো জায়গা থেকে আসতে হবে পৌরসভার জিরো পয়েন্টে। সেখানে এসে পূর্ব দিকেই সিএনজি বা রিকশা দিয়ে চলে যেতে হবে সাংসদ আশিকুর রহমানের বাড়ির পাশে কাশবন এলাকার । সেখানে গিয়েই উত্তর-পূর্ব দিকে তাকালেই দেখা যাবে কাশবনের আরেক রাজ্য।
কিছু কিছু কাশবন দেখা যায়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
Copyright © All Right Reserved 2020 আমার দেশ প্রতিদিন
Theme Designed BY Kh Raad ( Frilix Group )